রেজি: নং - আবেদিত, প্রতিষ্ঠাকাল: ১মার্চ ২০১৪                                           শুক্রবার,  ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,  সন্ধ্যা ৭:৪৭

রুপবাবুর হাটে নৌকার মাঝী তৈরী করলো ভাসমান সেতু

January 4, 2018 , 10:07 am

Image_5742শরীয়তপুর জেলায় জাজিরা উপজেলার রুপ বাবুর হাট থেকে পালের চর যাওয়ার সুগন্ধা নদীর উপর দিয়ে বাশ কাঠের ব্রিজ করে দিয়েছেন ঐ ঘাটের মাঝী মন্টু বাবু। জাজিরা উপজেলার রুপ বাবুর হাট শিকদার কান্দীর কুটি দাসের ছেলে মন্টু বাবু দাসের আপ্রান চেষ্টায় রুপবাবুর হাট ও পালের চরের যাতায়াতের একমাত্র পথ সুগন্ধা নদী উপর দিয়ে বাশ, কাঠ, স্টীলের বড় ড্রাম দিয়ে ১০০০ ফুট ব্রিজ তৈরী শেষে আজ বুধবার দুপুরে পূর্ব নাওডোবা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ লাল চাঁন মিয়া সহ বিভিন্ন শ্রণী পেশার মানুষ উপস্থিত থেকে ব্রিজটি এপার ওপারের মানুষের শুধু পায়ে হেটে পারাপারের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে।
জানা যায়,মন্টু বাবু এই ঘাটে ২৫ বছর ধরে নৌকা দিয়ে অগনিত মানুষকে পাড় করিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।
তার বাবাও ৫০ বছর ছিলেন এ ঘাটের উপকারী বান্ধব কুটি বাবু। এর আগেও তার পূর্ব পুরুষরা এই ঘাটে নৌকা বাইতেন। এই ঘাটটি প্রায় শত বছর ধরে ব্যাবহার হচ্ছে ।
অনেক চেষ্টা করে বাঁশ কাঠের এই ব্রিজে চার মাস ধরে কাজ করিয়েছেন ১২০০ পিস বাঁশ ২ মন পাটের দড়ি দেড় মন তার কাটা, কাঠ ও স্টীলের বড় ড্রাম ব্যাবহার করেছে, এতে এই ১০০০ ফুট ব্রিজ করতে তার ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে বলে জানায় মাঝী মন্টু বাবু, তিনি আরো বলেন, আমার ইচ্ছে ছিলো এভাবে একটা ব্রিজ করবো যাতে এই এপার ওপার এক করে দিতে তাই এ ব্রিজটা তৈরী করতে পেরে আমি আনন্দিত।

এই ব্রিজটি দিয়ে একজন দুইবার পাড় হলে মন্টু বাবু মাঝী পাবে ৫ টাকা।
এই ব্রিজটি পেয়ে স্থানীয় প্রায় পঞ্চাশ হাজার মানুষের মনে আনন্দ জেগে উঠেছে এ জন্য ব্রিজটির নাম দিয়েছে মন্টু বাবু সেতু।
স্থানীয়রা আক্ষেপ বলেন এখানে এমপি মন্ত্রী অনেকেই ব্রিজ দিবো প্রতিশ্রুতি দিছে কেউ ব্রিজ দেয়নি। তাই এখন এই মন্টু বাবু ব্রিজটা তৈরী করে বুঝিয়ে দিলো ইচ্ছা থাকলে অনেক কিছু করা যায়। এখানে একদিন আগেও নৌকা দিয়ে পার হতে হতো।
০৩-০১-২০১৮

Total View: 960
নিউটি সম্পর্কে আপনার মন্তব্য: